সংরক্ষিত আসনে স্বতন্ত্র নারী এমপি হতে পারবেন ১০ জন : আওয়ামী লীগ ৩৭ ও জাপা পাবে দুটি

সংরক্ষিত আসনে স্বতন্ত্র নারী
এমপি হতে পারবেন ১০ জন
# আওয়ামী লীগ ৩৭ ও জাপা পাবে দুটি
রফিকুল ইসলাম সবুজ:
দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নব নির্বাচিত সংসদ সদস্যরা শপথ নেবেন বুধবার। সকাল ১০টায় সংসদের শপথকক্ষে সংসদ সদস্যদের শপথ পড়াবেন একাদশ সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। এর পর কয়েক দিনের মধ্যেই শুরু হবে সংসদের ৫০টি সংরক্ষিত নারী আসনের নির্বাচনী প্রক্রিয়া। চলতি মাসেই নারী আসনের নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে বলে ইসি সুত্র জানিয়েছে। সংবিধান অনুযায়ী একটি রাজনৈতিক দলের ৬ জন নির্বাচিত সংসদ সদস্য থাকলে ঐ দল থেকে একজন প্রার্থী সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য হবেন। সেই হিসেবে আওয়ামী লীগ ৩৭টি ও জাতীয় পার্টি ২ টি মহিলা সংসদ সদস্য পাবেন।
সংসদ সচিবালয়ের সংস্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, ৬২ জন স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য একত্রে জোট বদ্ধ হলে অথবা ৬ জন করে জোটবদ্ধ হয়ে প্রার্থী দিলে ১০টি আসনে স্বতন্ত্র মহিলা সংসদ সদস্য নির্বাচিত করার সুযোগ পাবেন। এক্ষেত্রে তাদের আরও দুটি ভোট অবশিষ্ট থাকবে। জাসদ, ওয়ার্কার্স পার্টি ও কলাণ পার্টির একটি করে আসন রয়েছে। ফলে তারা স্বতন্ত্র দুজন সংসদ সদস্যের সমর্থন দিয়ে প্রার্থী দিলে এক জন মহিলা সংসদ সদস্য নির্বাচিত করার সুযোগ পাবেন। আর তারা জোটবদ্ধ হতে না পারলে আইন অনুযায়ী সংখ্যাগরিষ্ট দল এই আসনে প্রার্থী নির্বাচিত করার সুযোগ পাবে বলে সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।
আগে প্রথাগতভাবে সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি হিসেবে ক্ষমতাসীন দলের মনোনিত প্রার্থীরাই নির্বাচিত হতেন। ২০০৪ সালের সংবিধানের চতুর্দশ সংশোধনীর মাধ্যমে সংসদে কোন দলের কতজন প্রতিনিধি রয়েছে তার আনুপাতিক হারে সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচিত করার বিধান অন্তর্ভুক্ত করা হয়। সেই হিসেবে একটি রাজনৈতিক দলের যদি ৬ জন এমপি থাকেন, তাহলে ঐ দল থেকে একজন প্রার্থী সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি হবেন। সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি নির্বাচিত হন জাতীয় নির্বাচনে ৩০০ আসনে বিজয়ী হওয়া এমপিদের ভোটের মাধ্যমে।
জাতীয় সংসদ (সংরক্ষিত মহিলা আসন) নির্বাচন আইন অনুযায়ী সংসদের সাধারণ নির্বাচনের ফলাফল সরকারী গেজেটে প্রকাশিত হওয়ার তারিখের পরবর্তী ত্রিশ কার্য দিবসের মধ্যে সংবিধানের ৬৫ অনুচ্ছেদের (৩) দফার অধীন সংরক্ষিত মহিলা আসনে নির্বাচনের উদ্দেশ্যে নির্বাচন কমিশন সাধারণ আসনে নির্বাচিত সদস্যদের রাজনৈতিক দল বা জোটওয়ারী সদস্যদের পৃথক পৃথক তালিকা প্রস্তুত করবে এবং প্রত্যেক তালিকার অন্তর্ভুক্ত সদস্যদের মোট আসন সংখ্যার আনুপাতিক হার অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট রাজনৈতিক দল ও জোটের অনুকূলে সংরক্ষিত মহিলা আসনসমূহ বণ্টন করবে।
আইনে বলা আছে কোন নির্দলীয় সদস্য কোন রাজনৈতিক দল বা জোটে যোগদান করলে নির্বাচন কমিশন যোগদানকারী সদস্যকে সংশ্লিষ্ট দল বা জোটের মনোনয়নে নির্বাচিত সদস্য হিসাবে গণ্য করে তার নাম উক্ত দল বা জোটের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করবে। কোন রাজনৈতিক দল বা জোট অন্য কোন রাজনৈতিক দল বা জোটকে নিয়ে পৃথক জোট গঠন করলে অথবা কোন রাজনৈতিক দল বা জোট কোন নির্দলীয় সদস্যকে নিয়ে পৃথক জোট গঠন করলে নির্বাচন কমিশন সংশ্লিষ্ট জোটের অন্তর্ভুক্ত সদস্য সমন্বয়ে একটি পৃথক তালিকা প্রস্তুত করবে। এছাড়া যদি কোন নির্দলীয় সদস্য উপ-ধারা (৩) বা (৫) এর অধীন কোন রাজনৈতিক দল বা জোটে যোগদান না করে তিনি অন্য কোন নির্দলীয় সদস্যের সাথে একত্রিত হয়ে কোন স্বতন্ত্র নামে নির্দলীয় জোট গঠন করতে পারবেন এবং এমন জোট গঠন করলে নির্বাচন কমিশন উক্ত জোটের নামে একটি পৃথক তালিকা প্রস্তুত করবে। ফলে আইন অনুযায়ী স্বতন্ত্র সংসদ সদস্যরা জোট গঠন করে মহিলা এমপি নির্বাচিত করতে পারবেন।
এদিকে কারা সংরক্ষিত আসনের এমপি কারা হচ্ছেন তা নিয়েও শুরু হয়েছে আলোচনা। জাতীয় পার্টি সুত্র জানায়, জাপার দুটি আসনে মনোনয়ন পাচ্ছেন দলের চেয়ারম্যানের স্ত্রী ও কো-চেয়ারম্যান শেরিফা কাদের এবং আরেক কো চেয়ারম্যান সালমা ইসলাম। এ দুজনই সদ্য সমাপ্ত নির্বাচনে পরাজিত হয়েছেন।
অন্যদিকে আওয়ামী লীগের বর্তমান মহিলা এমপিদের মধ্য থেকে এবারও এমপি হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে রয়েছেন  ঢাকার ফজিলাতুন নেছা ইন্দিরা, নাহিদ ইজহার খান, শবনম জাহান শিলা, সুবর্ণা মোস্তাফা, চট্টগ্রামের ওয়াসিকা আয়শা খান, খুলনার অ্যাডভোকেট গ্লোরিয়া ঝর্না সরকার, নরসিংদীর তামান্না নুসরাত বুবলী, কুমিল্লার আরমা দত্ত, গোপালগঞ্জের নার্গিস রহমান ও খাগড়াছড়ির বাসন্তী চাকমা। এছাড়া সংরক্ষিত আসনের সাবেক এমপি এবং যুব মহিলা লীগের সাবেক সভাপতি নাজমা আক্তার ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক অপু উকিলও আলোচনায় রয়েছেন। নতুন মুখ হিসেবে আলোচনায় রয়েছেন যুব মহিলা লীগের সভাপতি ডেইজী সারোয়ার ও সাধারণ সম্পাদক শারমিন সুলতানা লিলি, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুব মহিলা লীগের সভাপতি ফারজানা ইয়াসমিন ও সাধারণ সম্পাদক  নিলুফা রহমান, ঢাকা মহানগর উত্তর যুব মহিলা লীগের সভাপতি তাহেরা খাতুন লুৎফা ও  সাধারণ সম্পাদক শামীমা রহমান।
##
Print Friendly, PDF & Email